» সিলেট চেম্বারের নির্বাচন : মুখোমুখি দুটি প্যানেল

প্রকাশিত: ১০. সেপ্টেম্বর. ২০১৯ | মঙ্গলবার

অনলাইন প্রতিবেদক : সিলেট চেম্বারের নির্বাচনে পরিবারতন্ত্রকে বয়কট করার আহবান জানিয়েছে সম্মিলিত ব্যবসায়ী পরিষদ। সেই সাথে সিলেটে বিগত দিনে যাদের হাত ধরে ব্যবসায়ীদের বৃহৎ এই অভিভাবক সংগঠনকে বিতর্কিত করা হয়েছে- তাদেরকে ভোট না দেওয়ার আহবান জানানো হয়। রোববার নগরের একটি অভিজাত হোটেলের বলরুমে সিলেটের স্বনামধণ্য সকল ব্যবসায়ীদের উপস্থিতিতে এক পরিচিতি সভায় ভোটারদের প্রতি এই আহবান জানান ব্যবসায়ীরা। জানাগেছে, ঢাকা চট্রগ্রামের পর সিলেট চেম্বার অব কমার্সের অবস্থান। অভিযোগ রয়েছে- বিগত দিনে ভোট জালিয়াতি ও পকেট ভোটের মাধ্যমে জামায়াত-বিএনপি চক্র ২০০২ সাল থেকে এই প্রতিষ্ঠানকে পরিবারতান্ত্রিকভাবে পরিচালনা করে আসছে। এর ফলে নির্বাচনকালীণ তড়িগড়ি করে বেড়ে যায় প্রতিষ্ঠানের ভোটার সংখ্যা। স্বজনপ্রীতির মাধ্যমে সাক্ষর জাল, ভুয়া ভোটার তালিকাসহ নানা অনিয়মে অভিযুক্ত হয় সিলেট চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রি। এভাবে এক ইউনিয়নের ট্রেড লাইসেন্সে ৪শ‘ ভোটারও করা হয়েছে। একদিনে ৬শ’ জনকে ভোটার করারও নজির রয়েছে সিলেট চেম্বারে। যে কারণে বারবার প্রতিষ্ঠানটিকে যেতে হয়েছে আদালতে।

চলতি মাসের ২১ সেপ্টেম্বর সিলেট চেম্বারের দ্বি-বার্ষিক মেয়াদের নির্বাচন। নির্বাচনকে সামনে রেখে চলছে প্রচার প্রচারণা। প্রতিষ্ঠানের ২১ জন পরিচালকের বিপরীতে দুটি প্যানেলে নির্বাচনে অংশ নিচ্ছেন ৪০ ব্যবসায়ী। এর মধ্যে প্রতিদ্বন্দ্বি না থাকায় টাউন এসোসিয়েশন থেকে নির্বাচিত হয়েছেন শমসের জামাল। সিলেট চেম্বারের নির্বাচন পরিচালনা বোর্ড শমসের জামালকে বিজয়ী ঘোষণা করেন। বিজয়ী প্রাথী সিলেট ব্যবসায়ী পরিষদের সদস্য বলে জানাগেছে। সম্মিলিত ব্যবসায়ী পরিষদের দাবি-যারাই নির্বাচিত হবেন, অন্তত চেম্বারকে আগে জাল ভোটের অপবাদ থেকে মুক্ত করবেন। এ জন্য প্রয়োজন শক্তিশালী নেতৃত্ব। আর এই নেতৃত্ব সম্মিলিত ব্যবসায়ী পরিষদ থেকে বেরিয়ে আসা নেতৃবৃন্দ দিতে পারবেন, বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন তারা। সিলেট ব্যবসায়ী পরিষদ নির্বাচনী প্রচারণায় বিগত দিনে সিলেট চেম্বারে সবচেয়ে বেশি ব্যবসায়ী স্বার্থ রক্ষায় কাজ করা হয়েছে-এমনটি দাবি করে বলেন, চেম্বারকে শক্তিশালী ও ব্যবসায়ীদের উন্নয়নে তরুন ও প্রবীনদের সম্বনয়ে গঠিত যোগ্য ও দক্ষ প্যানেল ’সিলেট ব্যবসায়ী পরিষদ’। তরুণরা তাদের যোগ্যতা ও দক্ষতাকে কাজে লাগিয়ে আগামী দিনে চেম্বারকে আরো গতিশীল করবেন। বর্তমান প্রতিযোগিতামুলক বিশ্বে ব্যবসা বান্ধব পরিবেশ সৃষ্টি ও ব্যবসায়ীদের স্বার্থে তরুণদের সম্বনয়ে গঠিত পূর্ণ প্যানেলকে বিজয়ী করলে ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মানের লক্ষ্যে বিনিয়োগ বান্ধব পরিবেশ সৃষ্টি, পর্যটন, শিল্প ও আইটি খাতের বিকাশ, ব্যবসায়ীদের ভ্যাট ও ট্যাক্স সহ যাবতী দাবী দাওয়া আদায়ে চেম্বারকে শক্তিশালী করা হবে। মঙ্গলবার নির্বাচনী প্রচারণায় সিলেট ব্যবসায়ী পরিষদ নেতৃবৃন্দ এই দাবি করলেও সম্মিলিত ব্যবসায়ী পরিষদের নেতৃবৃন্দ বিষয়টি মানতে নারাজ।

তাদের দাবি-যারা বিগত দিনেও ব্যবসায়ীদের স্বার্থ রক্ষায় কাজ করতে পারেনি, আগামী দিনেও তারা সেই কাজ করতে ব্যর্থ হবেন। উপরন্তু সিলেট চেম্বারের ধারাবহিকতায় সদ্য বিদায়ী কমিটির সীমাহিন অনিয়ম,স্বজনপ্রীতি প্রতিষ্ঠানটিতে আবারো কালিমা লেপন করেছে। এ ব্যাপারে সিলেট সম্মিলিত ব্যবসায়ী পরিষদের সদস্য, সিলেট চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাষ্ট্রির সাবেক সিনিয়র সহ-সভাপতি ও এফবিসিসিআই’র সাবেক পরিচালক হিজকিল গুলজার বলেন,সিলেটের ব্যবসায়ীরা দীর্ঘদিন থেকে ভুগছে অভিভাবক শুণ্যতায়। এই স্থান পূরণে ব্যর্থ হয়েছে বিতর্কের দায়ে অভিযুক্ত বিদায়ী পরিষদ। তিনি বলেন, সিলেট চেম্বার কোনো পরিবারের সম্পত্তি নয়।

এই বিষয়টি মনে রেখে কাজ করতে হবে ব্যবসায়ীদের স্বার্থ রক্ষায়। ভোটার তৈরিতে প্রতিষ্ঠানটিকে রাখতে হবে শতভাগ স্বচ্ছ। কাজ করতে হবে প্রবাসী অধ্যুষিত সিলেট অঞ্চলে বিনিয়োগবৃদ্ধির লক্ষ্যে। বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের ক্যালে-ার অনুযায়ী বৎসরে মেলা আয়োজনের মধ্য দিয়ে দেশিয় পণ্যের উৎপাদন এবং উৎপাদনমুখী করতে হবে স্থানীয় উদ্যোক্তাদের। তিনি বলেন, দু:খজনক হলেও সত্য-এরসবগুলোই ছিল বিগত দিনে অনুপস্থিত।

চার ক্যাটারিতে সিলেট চেম্বার অব কমার্সের ভোটার রয়েছেন ২ হাজার ৬৫ জন। এরমধ্যে অর্ডিনারিতে ১ হাজার ৪১৩ জন, এসোসিয়েট ১ হাজার ৪০ জন, গ্রুপ ক্যাটাগরিতে ১১ জন। চারটি গ্রুপে অর্ডিনারী ক্যাটাগরিতে জনপ্রতি ১২ ভোট, এসোসিয়েটে ৬ ভোট, গ্রুপে ৩ ভোট এবং টাউন ক্যাটাগিরিতে ১ ভোট দিতে পারবেন ভোটাররা। তবে, টাউন ক্যাটাগরিতে শমসের জামাল পরিচালক নির্বাচিত হওয়ায় এই ক্যাটাগরিতে আর ভোটের প্রয়োজন পড়বেনা।

Share Button

এই সংবাদটি পড়া হয়েছে ৩০ বার

Share Button
  • বুধবার ( সন্ধ্যা ৭:৫৬ )
  • ১৮ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইং
  • ১৯শে মুহাররম, ১৪৪১ হিজরী
  • ৩রা আশ্বিন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ ( শরৎকাল )

সর্বশেষ খবর

Flag Counter